Home স্বাস্থ্য কথা লিঙ্গ প্রদাহ (Balanitis) – কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা?

লিঙ্গ প্রদাহ (Balanitis) – কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা?

83

লিঙ্গ প্রদাহ (Balanitis) – কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা?
যে ১০টি কারণে হতে পারে।পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা বিভিন্ন কারণে হতে পারে। কোনও সাধারণ রোগ থেকেও হতে পারে আবার কোনও বড়সড় যৌন রোগের ফলেও হতে পারে। এমন কিছু হলে কখনওই অবহেলা করবেন না।
পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা হলে কখনওই তা ফেলে রাখা উচিত নয়। সাধারণ ইনফেকশন থেকে যন্ত্রণা যেমন হতে পারে তেমনই এর পিছনে যৌন সংসর্গের ফলে সং‌ক্রামিত রোগও থাকতে পারে। জেনে‌ নিন ১০টি কারণ—

১) কোনও রকম ইনফেকশনের কারণে প্রস্টেট গ্ল্যান্ড ফুলে গেলে যন্ত্রণা হতে পারে। একে বলে প্রস্টাইটিস।
২) ক্রনিক নন-ব্যাকটেরিয়াল প্রস্টাইটিসের কারণে পুরুষাঙ্গে ফোলা ভাব এবং যন্ত্রণা হয়। যন্ত্রণা ইউরিনারি ট্র্যাক্টেও ছড়িয়ে পড়ে।
৩৫ থেকে ৫০ বছরের ছেলেদের মধ্যে এটি একটি অত্যন্ত সাধারণ সমস্যা।

৩) ইউরিনারি ট্র্যাক্টে ব্যাকটেরিয়া জনিত কারণে ইনফেকশন হলে পুরষাঙ্গে তীব্র যন্ত্রণা হয়। কখনও কখনও শুধুমাত্র ইউরেথরাতে ইনফেকশনের কারণেও যন্ত্রণা হতে পারে। একে বলে ইউরেথ্রাইটিস।
৪) মূত্রথলিতে পাথর থাকলে তা থেকেও পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা হতে পারে।
৫) জেনাইটিল হার্পিস হল এক ধরনের যৌন সংসর্গের ফলে সংক্রামিত রোগ। পার্টনারের শরীর থেকে এই রোগ ছড়ায়। যোনি এবং যোনির আশেপাশের অংশে হার্পিস থাকলে যৌনমিলনের পরে তা সহজেই সংক্রমণ ঘটায় পুরুষাঙ্গে। হার্পিস হল এক ধরনের ছোট ছোট ফোস্কার মতো র‌্যাশ। পুরুষাঙ্গে হার্পিস হলে তীব্র যন্ত্রণা হয়। ফোস্কাগুলি থেকে পুঁজের মতো ক্ষরণও হয়।

৬) পেনাইল ক্যানসার হল পুরুষাঙ্গের ক্যানসার। এই রোগ বাসা বেঁধে থাকলে যন্ত্রণা হওয়া খুব স্বাভাবিক। চুলকানি, জ্বলুনির মতো অনুভূতি, পুরুষাঙ্গ লাল হয়ে যাওয়া, হঠাৎ হঠাৎ ক্ষরণ ইত্যাদি এর লক্ষণ।

৭) পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণার অন্যতম কারণ হতে পারে রিঅ্যাক্টিভ আর্থারাইটিস বা এক প্রকারের বাত যা কি না বিশেষ এক ধরনের ইনফেকশন থেকে হয়।
৮) ব্যালানাইটিসের ফলে পুরুষাঙ্গের অগ্রভাগ এবং বহিঃত্বক ফুলে যায় এবং ব্যথা হয়। পাশাপাশি চুলকানি ও লাল ভাবও দেখা যায়। যাঁরা পুরুষাঙ্গকে নিয়মিত পরিষ্কার রাখেন না তাঁদের মধ্যেই এই রোগ বেশি দেখা দেয়।

৯) ক্ল্যামিডিয়াল ইউরেথ্রাইটিস হল যৌন সংসর্গের ফলে সংক্রামিত একটি রোগ। সঙ্গিনীর যোনিতে যদি ক্ল্যামিডিয়া ইনফেকশন থেকে থাকে তবে তা সহজেই সংক্রামিত করে পুরুষাঙ্গকে। এর ফলেও যন্ত্রণা হয়।
১০) সিফিলিস হল সবচেয়ে মারাত্মক যৌনরোগগুলির মধ্যে অন্যতম। এই রোগের অন্যতম লক্ষণ পুরুষাঙ্গে যন্ত্রণা। সাধারণত যাঁরা
লিঙ্গ প্রদাহ (Balanitis) :- লিঙ্গমনি এবং লিঙ্গের অগ্রভাগের চর্মের শ্লৈষ্মিক ঝিল্লির প্রদাহকে লিঙ্গ প্রদাহ বা Balanitis বলে। বাংলায় এই প্রদাহকে মনোষ বলা হয়ে থাকে। সাধারনত যাদের লিঙ্গের অগ্রভাগের চর্ম অধিক লম্বা তাদেরই এই পীড়া হয়ে থাকে। আবার অনেক সময় প্রমেহ রোগের উপসর্গ রূপে ইহা প্রকাশ পায়। এছাড়া সহবাস করলে ঘর্ষণ জনিত চর্মময় বা শ্বেতপ্রদরে আক্রান্ত স্ত্রীলোকের সঙ্গে সহবাস করলে এই প্রদাহ হতে পারে।

লিঙ্গ প্রদাহের (Balanitis) লক্ষণ :- ইহাতে প্রথমে আক্রান্ত স্থান লালবর্ণ ধারণ করে, চুলকানি হয়, গরম বোধ ও বেদনাযুক্ত হয়। তারপর পুজ পড়তে থাকে এবং কখনো কখনো ক্ষত হয়ে যায়। লিঙ্গের সম্মুখ অংশ ও ইহার আবরণ প্রদাহিত হয়। ফুলে উঠে, ঘোর লাল বর্ণ হয়, টন টন করে, কাপড়ের ঘষা লাগলে বেদনা অনুভব হয়। প্রদাহিক স্থানের মধ্য হতে প্রচুর পরিমানে তরল হরিদ্রা বর্ণের বা সবুজাভ দূর্গন্ধযুক্ত চটচটে পুঁজ নির্গত হতে থাকে। কখনো কখনো লিঙ্গমুন্ডের উপর লাল বর্ণের ভাসা চওড়া ক্ষত সৃষ্টি হয়। ১০/১৫ দিন পর্যন্ত এই ক্ষতের কোন প্রকার পরিবর্তন দেখা যায় না কিন্তু তারপরে আপনা আপনি আরোগ্য হয়। কিন্তু অনেক সময় আবার ভয়ঙ্কর রূপ লাভ করে থাকে। তখন ইহা উপদংশ পীড়ার সেন্গ্কারের মক্ত রূপ লাভ করে।

রোগীর মধ্যে যদি কোন সিফিলিস বা গনোরিয়া জাত জীবানু না থাকে তবে ইহা শীগ্রই আরোগ্য লাভ হয় নতুবা সহজে আরোগ্য লাভ করতে চায় না এবং রোগী বেশ যন্ত্রণা ভোগ করে। অনেক সময় শিশুদের এই রোগ দেখা দেয়। যে সকল শিশু নিতান্ত রুগ্ন এবং যাদের লিঙ্গাগ্রে চর্ম লম্বা তারা অনেক সময় এই পীড়ায় আক্রান্ত হয়। তবে এই সমস্যার যথাযথ হোমিও ট্রিটমেন্ট রয়েছে। অভিজ্ঞ একজন হোমিও ডাক্তারের পরামর্শ ক্রমে চিকিৎসা নিলে খুব অল্প সময়েই লিঙ্গ প্রদাহ দূর হয়ে যায়। 

 বিঃ দ্রঃ****এই রকম আরো  গুরুত্বপূর্ণ হেলথ নিউজ ,তথ্য সহ স্বাস্থ্য টিপস পেতে ডাউনলোড করুন অ্যাপস****

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.homeo.tips